রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ০৮:১১ পূর্বাহ্ন



আইনগতভাবে, ধর্মীয় শরীয়ত মেনেই তামিমাকে বিয়ে করেছি : নাসির
প্রকাশের সময়ঃ ২০২১-০২-২৬ ০২:০০:৩০
তামিমা সুলতানাকে বিয়ের পরই আবারো আলোচনায় আসেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন। তবে এবার নিজেই এই ইস্যু নিয়ে কথা বলেছেন জাতীয় দলের এই তারকা ক্রিকেটার।



গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে তামিমা সুলতানার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন নাসির। বিয়ের পরই নাসিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেই তারই সহ ধর্মিণীর সাবেক স্বামী রাকিব হাসান। মিডিয়ায় এসে জোর গলায় বলেন, তার সঙ্গে বিচ্ছেদ করা ছাড়াই কন্যা সন্তান রেখে বিয়ে করেন তামিমা।


বিগত কয়েকদিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এটি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হলে অবশেষে এটি নিয়ে মুখ খুললেন খোদ নাসির। বনানীতে এই ইস্যু নিয়ে মিডিয়ার সামনে আসেন তিনি এবং তার সহধর্মিণী। নাসির বলেন ধর্মীয় শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে করেছেন তারা দুজন।


“আমি তামিমাকে চিনি চার-সাড়ে চার বছর ধরে। তার সঙ্গে আমার খুবই ভালো বন্ধুত্ব ছিল। তারপরই আমাদের প্রেম হয় এবং প্রেম থেকে বিয়ে। আমি তাকে খুব কাছ থেকেই চিনি। আমি এবং তামিমা যথেষ্ট পরিপক্ক। আমার মনে হয় না জেনেশুনে এমন কোন ভুল করবো। আমরা যা করেছি সেটা আইনগতভাবে, ধর্মীয় শরীয়তভাবে। আমাদের মনে যদি এসব কিছু থাকতো তাহলে এভাবে মানুষ জানিয়ে বিয়ে করতাম না, চুপচাপি বিয়ে সেরে নিতাম।”


তিনি আরও যোগ করেন, “আমি সব কিছুই জানি- যে তার বিয়ে হয়েছিল, বাচ্চা আছে, বিচ্ছেদ হয়েছে। এসব জেনেই তাকে বিয়ে করেছি। আমি হয়ত মিডিয়ার সামনে দুই-তিনদিন পরে আসছি। কারণ আমি চাইলেই ফেসবুকে এসে তালাক পেপার নিয়ে দেখাতে পারি না যে বিচ্ছেদ হয়েছে, তাই আইনগতভাবেই এসেছ। আমরা যা করেছি আইনগতভাবেই করেছি, বেআইনী কিছু করে নি।”


রাকিবের মন্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পরেই একে একে বেশ কয়েকটি নিউজ বের হয় নাসির এবং তার সহধর্মিণী তামিমা হোসেনের নামে। মিডিয়াকে অনুরোধ জানিয়েছেন ঘটনার সত্যতা না জেনে যেন তাঁদের নিয়ে কোন নিউজ না করে।


“আপনাদের কাছে আমার একটাই অনুরোধ যারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তামিমাকে নিয়ে যেসব কটু মন্তব্য করছেন সেসব থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করছি। কারণ আপনার একটা নিউজ, একটি ভিডিও একটা মানুষকে অনেক দূরে ঠেলে দেয়। কারণ তামিমার সাথে আজকে যা হয়েছে আপনাদের সঙ্গেও কাল সেটা হতে পার। আমি আশা করব সঠিক তথ্য না জেনে আজেবাজে নিউজ করা থেকে মিডিয়া বিরত থাকব।”


সেই সাথে ফেসবুকে ব্যাপক ট্রলের শিকার হচ্ছেন তার সহধর্মিণী তামিমা। নাসির সংবাদ সম্মেলনে জানিয়ে রাখেন তার সহধর্মিণীকে কোন আজেবাজে মন্তব্য সহ্য করতে পারবেন না তিনি। প্রয়োজনে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনী লড়াইয়ে যাবেন বলে জানিয়ে রাখেন নাসির।


“এতদিন সে শুধু তামিমা ছিল, এখন তামিমা হোসেন। আমি চাইব না আমার বউয়ের দিকে কেউ আঙুল তুলে কথা বলুক। যারাই যেখান থেকে কথা বলতেছে না কেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নিব।”

ফেসবুক পেইজ